ইবাদাতের মর্ম সামগ্রিক

আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি
ওয়া সাল্লাম বলেন:

 ‘মুমিনের ব্যাপারটাই
আশ্চর্যজনক। তার প্রতিটি কাজে তার জন্য মঙ্গল রয়েছে। এটা মুমীন ব্যতীত অন্য কারো জন্য
নয়। সুতরাং সে সুখী হলে আল্লাহর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে, ফলে এটা তার জন্য মঙ্গলময় হয়। আর দুঃখ পেলে সে ধৈর্য ধারণ করে,
ফলে এটাও তার জন্য মঙ্গলময় হয়।’-মুসলিম

http://bn.islamkingdom.com/

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (টি রেটিং)
ঠিক কথাই বলেছেন। ইবাদতের অর্থ শুধু নামায-রোজা নয়; বরং জীবনের সামগ্রিক কাজকর্ম, আচার-আচরণ ও মন-মানসিকতাই ইবাদত হবে, যদি তা আল্লাহর হুকুম অনুসারে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য নিবেদিত হয়। বিপরীতক্রমে, মানুষের জীবনের চিন্তা-চেতনা, কথাবার্তা ও কাজকর্ম যদি আল্লাহর হক ও বান্দার হক বিনষ্টকারী হয়, তাহলে তা সকল এবাদতকে ধুলায় মিশিয়ে দেবে। মানুষ এবাদতের মর্ম বুঝতে না পারায় এবং এবাদত বলতে শুধু আনুষ্ঠানিক নামায-রোযাকে মনে করার কারণেই দেখা যায়, একই মানুষ একদিকে নামায-রোযাও করছে, অপরদিকে মানুষের উপর অসদাচরণও করছে। এ প্রসঙ্গে আমার একটি লেখাতে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। লেখাটি এখানে দেখতে পারেন:- "পুণ্য অর্জন অপেক্ষা পাপ বর্জন করা মহত্তর"
মূলত: সামগ্রিকভাবে আল্লাহর আনুগত্য করা, আল্লাহর অবাধ্যতা থেকে দূরে থাকা এবং শয়তানের আনুগত্য বর্জন করাই ইবাদত।

Rate This

আপনার রেটিং: None গড় রেটিং: 3 (টি রেটিং)